You are currently viewing গরুর মাংসের আচার কিভাবে তৈরি করা হয়? কেন খাবেন এই আচার? 
গরুর মাংসের আচার কিভাবে তৈরি করা হয়? কেন খাবেন এই আচার?

গরুর মাংসের আচার কিভাবে তৈরি করা হয়? কেন খাবেন এই আচার? 

কখনো কি মাংসের আচার খেয়েছেন? কী , শুনতেই অবাক লাগছে? অবাক হলেও এটাই সত্যি মাংস দিয়ে তৈরীকৃত আচার এতোটাই মজাদার যে ,একবার এই আচার খেলে এটির প্রেমে পরতে বাধ্য যে কেউ। মাংস দিয়ে তৈরী বাহারী পদের রান্নার সাথে তো আমরা সকলেই পরিচিত,তবে গরুর মাংস  দিয়ে বানানো আচারের কথা হয়তো আমরা অনেকেই জানি নাহ। চলুন তবে আজ জেনে নেওয়া যাক একটি ভিন্নধর্মী আচার সম্পর্কে।

আচারের সাথে আমাদের পরিচয় সেই প্রাচীন কাল থেকেই।শৈশবে নানী/দাদি কিংবা মা’র হাতে বানানো সেই আচারের টেস্ট গুলো জেনো আজও মনে পড়ে।তবে সময়ের সাথে সাথে এখন আচারের ধরন এবং স্বাদে এসে গেছে নতুনত্বতা। তারই ধারাবাহিকতাই এইবার আমাদের বিন্নিফুডের নতুন সংযোজন ‘ গরুর মাংসের আচার’। এই  আচার টি শুধু মাত্র যে একটি ইউনিক আচার,তা কিন্তু নাহ বরং স্বাদে মানে এবং গুনে এটি অন্য সকল আচার থেকেউ সেরা। গরম ভাত,খিচুরি কিংবা পোলাও এর সাথে গরুর মাংসের আচার টা বেশ জমে যায়।  বাঙালি আচারপ্রিয় মানুষ, তাই তাদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষ অবস্থানে আছে যে কোনো ফলের আচার।তবে আমিষের আচার  হিসেবে এই গরুর মাংসের আচারের জুরি মেলা ভার। গরুর মাংসের আচার একদিকে যেমন মুখরোচক খাবার ঠিক তেমনি এটি অনেক উপকারী ও বটে। গরুর মাংস হলো প্রোটিনের সম্পূর্ন উট্টস,এতে ২০ টি অ্যামিনো এসিডই পাওয়া যায়। পরিমিত পরিমানে গরুর মাংস খেলে যেই পরিমানে পুষ্টি পাওয়া যায় তা সমপরিমান অন্য কিছু থেকে পাওয়া সম্ভব নাহ। এটি একদিকে যেমন আমাদের খাবারের টেস্টে নতুনত্বতা আনবে সেই সাথে আমাদের আমাদের শরীরে আমিষের যোগান দিবে। তাই একটি ভিন্নধর্মী খাবারের টেস্ট পেতে চাইলে আজই অর্ডার করুন অসাধারন স্বাদের এই গরুর মাংসের আচার।

গরুর মাংসের আচার তৈরির উপকর

গরুর মাংসের আচার তৈরির উপকরন

হাড় ছাড়া ফ্রেশ গরুর মাংস , পেয়াজ কুচি,আদা বাটা, রসুন বাটা, জিরা গুড়া, ধনে গুড়া, সরিষা বাটা, শুকনো মরিচ গুরো/চিলি ফ্লেক্স, হলুদ গুড়া,আস্ত কাচামরিচ। গরম মশলা গুড়া, মেথি গুড়া, টকদই, খাটি সরিষার তেল, ব্রাউন সুগার, তেতুলের ক্লাথ/ যে কোণ টক ফলের আচার এবং বিন্নি ফুডের স্পেশাল মিক্সিং মশলা।

গরুর মাংসের আচার প্রস্তুত প্রণালী

প্রথমে হাড় ছাড়া ফ্রেশ মাংসগুলোকে ছোট ছোট টুকরো করে কেটে ভালো ভাবে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিতে হবে।এবার একটি পরিষ্কার পাত্রে মাংস গুলো ঢেলে এতে অল্প পেয়াজ বাটা,আদা বাটা,রসুন বাটা,সরিষা বাটা, লবন, গরম মশলা গুড়া এবং টকদই দিয়ে ভালো ভাবে ম্যারিনেট করে রাখতে হবে এক ঘণ্টার জন্য। তারপর অন্য একটি ফ্রাইপেনে খাটি সরিষার তেল গরম করে নিতে হবে এরপর এতে পেয়াজ কুচি দিয়ে ভালো ভাবে ভাজতে হবে যতোক্ষন না এটি বাদামী বর্ন ধারন করে। পেয়াজ বাদামি হয়ে আসলে এতে ম্যারিনেট করে রাখা মাংস গুলো দিয়ে ভালো ভাবে কষিয়ে নিতে হবে। এবার চুলার আচ মিডিয়াম হিটে রেখে এতে এড করতে হবে হলুদ গুড়া,ধনে গুড়া,শুকনো মরিচের গুড়া, তেতুলের পাল্প/যেকোনো টক আচার,ব্রাউন সুগার এবং বিন্নিফুড স্পেশাল মিক্সড মশলা।ভালো ভাবে এগুলোকে কষিয়ে নিয়ে যখন মাংসের কালার চেঞ্জ হয়ে আসলে বুঝতে হবে আমাদের মাংসের আচার রেডি।নামানোর পূর্বে এতে সামান্য ভাজা জিরা গুড়া এবং ভাজা মরিচের গুড়ো এড করতে পারেন এক্সট্রা স্পাইসি ফ্লেভারের জন্য। ব্যাস রেডি মজাদার গরুর মাংসের আচার।

কেন খাবেন এই আচার

  • গরুর মাংসে আছে ফ্যাটি এসিড, ভিটামিন এবং খনিজ লবন যা মানবদেহের জন্য উপকারি।
  • এতে আছে প্রচুর পরিমানে প্রোটিন শরীরের পেশি গঠনে ভূমিকা রাখে।
  • এতে থাকা আয়রন শরীরের পেশিগুলোতে অক্সিজেন প্রবাহে সহায়তা করে।
  • গরুর মাংসে আছে প্রচুর পরিমানে জিঙ্ক ।জিঙ্ক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • গরুর মাংসে থাকা ফসফরাস দাঁত ও হাড়ের শক্তি বাড়ায়।
  • গরুর মাংসে আছে Conjugated Linoleic Acid (CLA), এটি ক্যান্সার প্রতিরোধ, ডায়াবেটিস প্রতিরোধ এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়ক
  • গরুর মাংস বর্ধনশীল বাচ্চা বা টিএনএজারদের সমর্থ ও শক্তিশালী করে গরে তুলতে সাহায্য করে।
  • এটি আমাদের রক্ত বর্ধনে সহায়ক ভুমিকা রাখে।
  • গরুর মাংস হলো প্রানিজ আমিষের আধার। তাই সহজে আমিষের অভাব পুরন করতে চাইলে গরুর মাংসের বিকল্প নেই।

বিন্নি ফুডের গরুর মাংসের আচারই কেন সেরা?

  • ইউনিক স্বাদের এই আচার বানানোর জন্য আমরা সবসময় ফ্রেশ হাড়া ছাড়া মাংস গুলো বাছাই করে থাকি।
  • আচার তৈরিতে কোনো রকম প্রিজারভেটিভস, ভিনেগার, টেস্টিং সল্ট বা ক্ষতিকর কেমিক্যাল ব্যবহার করি নাহ।যার ফলে আপনি পাবেন সম্পূর্ন খাটি এবং ফ্রেশ প্রোডাক্ট।
  • আমাদের সকল প্রোডাক্ট আমরা নিজস্ব তত্বাবধানে তৈরি করে থাকি।ফলে খাবারের মান থাকে সম্পুর্ন নিয়ন্ত্রিত।
  • আমাদের মূল লক্ষ্য হলো ফ্রেশ এবং খাটি খাবার প্রতিটি ঘরে পৌছে দেয়া। তাই স্বাস্থ্যকর এবং নির্ভেজাল খাবারের টেস্ট পেতে চাইলে আমাদের এই গরুর মাংসের আচার হবে আপনার বেস্ট চয়েজ।
  • গরুর মাংসের এই আচার তৈরি প্রসেস অনেক কঠিন ও ঝামেলাযুক্ত। সঠিক মাত্রায় উপকরন গুলো ব্যবহার না করলে এটির আসল টেস্ট আপনি কোণ ভাবেই পাবেন নাহ। তাই আমরা বিন্নি ফুড অনেক যত্ন ও সব দিক খেয়াল রেখে সঠিক ও বেস্ট কোয়ালিটির আচার তৈরি করার পর তা টেষ্ট করেই আপনাদের ঘরে পৌছে দেয়ার জন্য হোম ডেলিভারি করে থাকি।

সংরক্ষন পদ্ধতি

সংরক্ষন পদ্ধতি

 মজার স্বাদের এই আচার টি হাতে পাওয়ার পর অবশ্যই এটিকে রোদে দিবেন এবং এয়ার টাইট ফুড গ্রেট বক্সে অথবা কাচের বয়ামে সংরক্ষন করবেন। দীর্ঘদিন সংরক্ষনের জন্য এটি ফ্রিজে রাখুন অথবা ঘরের নরমাল টেম্পাচারে রাখতে পারেন, তবে অবশ্যই মাঝে মাঝে রোদের দিবেন। আচার দীর্ঘদিন সংরক্ষনের আরেকটি উপায় হলো ডুবো তেলে আচার রাখা। যেহেতু আমদের আচারে ভিনেগার ব্যবহার করা হয় নাহ তাই এটিকে দীর্ঘদিন সংরক্ষন করতে চাইলে এতে এক্সট্রা সরিষার তেল এড করবেন এবং রোদে দিবেন।এভাবেই আপনি প্রায় ৬ মাস অব্দি সংরক্ষন করতে পারবেন এই মজার স্বাদের আচার।
   
তাহলে আর দেরি কেন এক্ষুনি অর্ডার করুন আর উপভোগ করুন মজার স্বাদের গরুর মাংসের আচার।নিজের জন্য অথবা প্রিয় মানুষের জন্য এই ভিন্নধর্মী এই আচারের জুরী মেলা ভার।

Leave a Reply