You are currently viewing কিভাবে আলুর পাঁপড় তৈরি করা হয়? আলুর পাঁপড় রেসিপি
আলুর পাঁপড় রেসিপি

কিভাবে আলুর পাঁপড় তৈরি করা হয়? আলুর পাঁপড় রেসিপি

কৃষি প্রধান এই দেশে আলু হলো অন্যতম উৎপাদিত সেরা একটি ফসল। ছোট কিংবা বড় প্রায় সবার পছন্দের তালিকায় রয়েছে এই আলু। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে হরহামেশাই আমরা আলু দিয়ে তৈরি করা বিভিন্ন মজাদার খাবার খেয়ে থাকি। বেশীর ভাগ রান্নার আইটেমে আলুর গুরুত্ব আমরা তখনি বুঝি যখন আলু কে মিস করি। মানে রান্নায় আলুর অভাব বোধ করি। অর্থাৎ যে কোন আইটেম রান্নায় আলু মাস্ট লাগবেই। যেমন ভর্তা, সবজি, তরকারি ছাড়াও অনেক ধরনের মজার আইটেম রান্নাতে আলুর প্রয়োজনীয়তা কেবল একজন রাধুনী বুঝতে পারে। 

তবে সঠিক পুষ্টিগুন এবং খাবারের স্বাদে ভিন্নতা আনার জন্য আলু দিয়ে তৈরি করা আলুর পাপড় হতে পারে সবার জন্য অন্যতম সেরা একটি অপশন। বিশেষ করে ছোট বাচ্চাদের জন্য এটি অনেক পছন্দের একটি খাবার। এছাড়া ছোট বাচ্চা থেকে শুরু করে যেকোনো বয়সের মানুষই তাদের দৈন্যন্দিন খাবারের তালিকায় রাখতে পারবেন এই মজাদার মুখরোচক আলুর পাঁপড়। কারন আলুর পাপড় খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনি মজার।

আলুর পাঁপড় কি?

আলুর পাপড় সাধারনত বিকেলের স্যাঙ্কস জাতীয় খাবার হিসেবে পরিচিত হলেও আপনি এটি গরম ভাত কিংবা খিচুরি এর সাথেও নিমিষেই খেয়ে ফেলতে পারবেন। আলুর পুষ্টিগুনে ভরপুর এবং খেতে মজাদার হওয়ার কারনে আগে গ্রামাঞ্চলে প্রায় সকলেই এই আলুর পাপড় তৈরি করতেন এবং দীর্ঘদিন ধরে সেটি সংরক্ষন করতেন। কিন্তু বর্তমানে অধিকাংশ মানুষই শহরমুখী হচ্ছেন এবং শহরের কর্মব্যস্ততাই তাদের ইচ্ছে থাকার সর্ত্বেও তারা চাইলেও এই পাপড় আর তৈরি করতে পারছেন নাহ। 

কারন এই পাপড় তৈরি করার প্রসেস টা বেশ কঠিন এবং সময়সাপেক্ষ্য একটি ব্যাপার। এছাড়াও আলুর পাঁপড়ে যদি সঠিকভাবে তাপ বা রোদে শুকানো ভালো না হয় তবে নষ্ট হতে পারে। সেই সাথে স্বাদেরও কিছু টা তারতম্য হয়। এই কারনে আলুর পাপড় খেতে ইচ্ছে করলেই অনেকে বাজারের পাপড় গুলো কিনে থাকেন, সেটি মোটেও স্বাস্থ্যসম্মত নাহ।

তাই আপনাদের স্বাস্থ্য এবং ইচ্ছে এর কথা মাথায় রেখে আমাদের বিন্নি ফুডের নতুন সংযোজন মজাদার বগুড়ার আ্লু দিয়ে তৈরি সেরা মানের পাপড়। কি ভাবছেন সারা দেশের বিভিন্ন স্থানে উৎপাদিত এতো আলু থাকা সর্ত্বেও বগুড়ার আলু দিয়েই কেন তৈরি মানের আলুর পাপড়!

উত্তরাঞ্চল হলো সবজির জন্য সেরা এবং বগুড়াতে উৎকৃষ্ট মানে আলু উৎপাদন হয়ে থাকে। তাই বগুড়া থেকেই চাষীদের কাছ থেকে সেরা মানের আলু সংগ্রহ করে তৈরি করা হয় আমাদের প্রিমিয়াম আলুর পাপড়। ফেব্রুয়ারি থকে এপ্রিল মাস হলো আলুর পাপড় তৈরি করার জন্য পার্ফেক্ট একটি সময়, কারন এই সময় আকশে পর্যাপ্ত রোদের দেখা মেলে। সাধারনত ১ মন আলুর পাপড় তৈরি করতে মিনিমাম ৫ মন আলুর প্রয়োজন হয়। 

আলুর পাঁপড় তৈরির রেসিপি

লাল গোল আলু, পাকরী, ক্যাটিলাল, ডায়মন্ড এবং গ্যানিলা আলু দিয়ে তৈরি করা হয় এই পাপড় গুলী। এর মাঝে ক্যাটিলাল এবং ডায়মন্ড আলুর পাপড়ের স্বাদ তুলনামুলক বেশি। চাহিদা হিসেবে এই আলু গুলোকে বিভিন্ন শেইপে কেটে পাপড় তৈরি করা হয়। বেশিরভাগ সময় লম্বা এবং গোল আকৃতিতেই তৈরি করা হয় পাপড় গুলি। চলুন তবে এইবার জেনে আশা যাক কীভাবে তৈরি করা হয় এই মজাদার আলুর পাপড় !

প্রথম ধাপঃ পাপড়  তৈরি এর প্রথম ধাপ হলো সঠিক আলু নির্বাচন করা।এই কারনে শীতকালে একেবারে প্রান্তিক কৃষকদের কাছ থেকে আমরা সেরা মানের আলু গুলো সংগ্রহ করে থাকি।

দ্বিতীয় ধাপঃ আলু সংগ্রহ এরপর আলু গুলোকে বাছাই করে ভালো করে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে নেয়া হয়। এরপর খোসা সহ আলু গুলোকে ঠান্ডা পানিতে বেশ কিছুক্ষনের জন্য ভিজিয়ে রাখা হয়। প্রায় ১/২ ঘন্টা পর আলু গুলোকে পানি থেকে উঠিয়ে একটি চালুনিতে রাখা হয় পানি ঝরানোর জণ্য। এরপর আলু গুলোকে পাতলা করে কেটে আবারো কিছুক্ষনের জন্য পানিতে ভিজিয়ে রাখা হয়। দ্বিতীয় বার আলু গুলোকে পানিতে আনুমানিক ৩০ মিনিট পর্যন্ত রেস্টে রাখা হয়। এরপর পানি ঝরানোর জন্য আবারো অন্য আরেকটি চালুনিতে রাখা হয়।

তৃতীয় ধাপঃ ৩য় ধাপে এসে চুলায় বড় একটি পাত্র বসিয়ে পানি গরম করা হয়। পানি গুলো ফুটতে শুরু করলে এতে সামান্য লবন এবং হলুদ দিয়ে কেটে রাখা আলু গুলো পরিপূর্ন ভাবে সিদ্ধ করা হয়। আলু গুলো সঠিক মাত্রায় সিদ্ধ হয়ে এলে আলু গুলো পাত্র থেকে উঠিয়ে বড় চালুনিতে পানি ঝড়াতে ও শুষ্ক করার জন্য রাখা হয়।

চর্তুথ এবং সর্বশেষ ধাপঃ এই পর্যায়ে সিদ্ধ আলু গুলো পানি ঝরিয়ে এলে এগুলোকে রোদে শুকানো হয়। আমরা বিশেষ পদ্ধতিতে সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিষ্কার কাপড়ের উপর এই পাপড় গুলো ভালোভাবে শুকিয়ে নেয়া হয়। সাধারন কড়া রোদে দুই দিনেই পাপড় গুলো বেশ ভালোমতোই শুকিয়ে যায়। তবে খেয়াল রাখতে হবে পাপড়ে যেনো কোনো কাচা ভাব না থাকে এবং খুবই সতর্কতার সহিত ও যত্নের সাথে এই কাজ গুলো করা উচিত।

আলুর চিপস বা পাঁপড় বানানোর উপকরন

আলুর পাপড়ের সাথে আমরা এটির স্বাদ বৃদ্ধি এর জন্য একটি ফ্রি মশলার প্যাকেট দিয়ে থাকি। চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক এই পাপড় এবং মশলার উপকরন সম্পর্কে।

পাপড়ের উপকরন
✅ বাছাইকৃত আলু
✅ লবন
✅ সামান্য হলুদ গুড়া

পাপড়ের মশলা এর উপকরন
✅ লবন
✅ চিলি ফ্লেক্স
✅ধনিয়া গুড়া
✅জিরা গুড়া
✅চাট মশলা
✅ বিন্নি ফুডের স্পেশাল সিক্রেট মশলা

ক্রিস্পি পোটেটো চিপস কিভাবে ভাজবেন

প্রথমে চুলার আচ নরমাল টু হাই হিটে রেখে কড়ায়ে পর্যাপ্ত পরিমানে তেল গরম করে নিতে হবে। এরপর তেল গরম হয়ে লে চুলার আচার লো হিটে রেখে পাপর গুলো ভাজতে হবে। পাপড় গুলো সাদা বর্ন হয়ে আসলেই দ্রুত তা নামিয়ে ফেলতে হবে। অন্যথায় বেশি লালচে হয়ে এলে পাপড় গুলো পুড়ে যাবার সম্ভব থাকবে। ফলে খেতে তিতকুতে ভাব আসতে পারে। তবে অনেকেই কড়া ভাজা পাঁপড় পছন্দ করে। যদি কেউ এমন পছন্দ করে থাকেন তবে ভেজে লাল করে খেতে পারেন। 

পাপড় ভাজা হয়ে এলে প্লেটে একটি টিস্যু রাখতে হবে এরপর পাপড় গুলো প্লেটে নামিয়ে রাখবেন। এতে করে পাপড়ে লেগে থাকা এক্সট্রা তেল রিমুভ হবে। আর পাঁপড় ভাজতে ছান্তা বা জালি খন্তা ব্যবহার করতে পারেন। এতে তেল ছাকতে সুবিধা হবে। সর্বশেষ ভাজা পাপড় গুলোতে বিন্নি ফুডের স্পেশাল পাপড়ের মশলা ছিটিয়ে নিলেই রেডি মজাদার আলুর পাপড়।

পাঁপড় সংরক্ষন পদ্ধতি

আমাদের এই আলুর পাপড়ে কোনো রকম ক্যামিক্যল বা প্রিজারভেটিভস এড করা হয় নাহ। তাই দীর্ঘদিন এই পাপড় সংরক্ষন করতে অবশ্যই মাঝে মাঝে রোদে দিবেন। রোদে কিছুক্ষন রাখার পরে পাঁপড়গুলো একটা এয়ার টাইট বক্সে রেখে দিবেন। এভাবে আপনি পাপড় গুলো ৮ থেকে ১০ মাস সংরক্ষন করতে পারবেন। 

বিন্নি ফুডের আলুর পাপড়ের বিশেষত্ব

✅ বাছাইকৃত সেরা মানের আলু দিয়ে তৈরি করা পাপড়।
✅ সম্পূর্ন ঘরোয়া পদ্ধতিতে তৈরি করা ।
✅কোনো কেমিক্যাল বা প্রিজারভেটিভ এড করা হয় নি তাই সম্পূর্ন
      ভেজাল্মুক্ত।
✅ দীর্ঘদিন সংরক্ষন করতে পারবেন।
✅ ফুড ভ্যালু বেশি।
✅ প্রিমিয়াম মানের প্যাকেজিং।
✅ প্রতি প্যাকেট পাপড়ের সাথে মজাদার পাপড়ের মশলা ফ্রি।
✅ সুস্বাদু ও মুখরোচক দারুন মজার পাঁপড় এটি। 

তাই বাজারের আজেবাজে খাবার না কিনে আজই অর্ডার করুন বিন্নি ফুডের স্পেশাল প্রিমিয়াম আলুর পাপড়। এটি আপনার খাবারে আনবে নতুনত্ব। আমাদের প্রচেষ্টা স্বাস্থ্যকর ও অর্গানিক ফুড গ্রাহক অব্দি পৌছে দেওয়া। স্বাস্থ্যকর খাবার খান, সুস্থ থাকুন।

Leave a Reply