You are currently viewing আমের আচার কিভাবে তৈরি করা হয়? কেন খাবেন?

আমের আচার কিভাবে তৈরি করা হয়? কেন খাবেন?

আমের আচারের কথা ভাবতেই প্রথমে সেই ছেলেবেলার কথা মনে পড়ে। ছেলেবেলায় গ্রামে গঞ্জে তৈরি আচারের মাঝে সবচেয়ে বেশি তৈরি হতো এই আমের আচার।  আমের আচারের সাথে জড়িয়ে আছে আমাদের শৈশব এবং কৈশরের অনেক অনেক স্মৃতি। বৈশাখের ঝড়ে গাছতলায় সকলের হুড়োহুড়ী শুরু হতো কাচা আম  সংগ্রহ নিয়ে। গাছে পর্যাপ্ত আম থাকা সর্ত্বেও কেন জানি এইভাবে ঝড়ের মাঝে সকল বন্ধু দের নিয়ে এভাবেই আম কুড়ানোর মাঝে অধিক আনন্দ পেতাম সকলেই। এরপর সেই কাচা আম সংগ্রহ করে বাড়িতে আনলেই মা তৈরি করে দিতেন মজাদার টক ঝাল মীষ্টি আমের আচার। তবে সময়ের পরিবর্তনে এখন আমরা সকলেই বেশ ব্যস্ত। কর্মব্যাস্ততাই অনেকেই ভুলে বসেছি আগের দিন গুলোকে। তবে মাঝে মাঝেই এখনো অনেকের ইচ্ছে হয় সেই পুরনো দিনের আচারের স্বাদ আস্বাদনের। এখন নামি দামী বহু ব্যান্ডের আচার আমাদের হাতের নাগালেই। কিন্তু তবুও কোথায়  জানি সেই  হোম মেইড আচারের স্বাদ বা গ্রামীন আচারের স্বাদ টা পাওয়া যায় নাহ। তাই আচারপ্রেমি দের জণ্য বিন্নি ফুড নিয়ে এসেছে সম্পূর্ন  ঘরোয়া পদ্ধতিতে তৈরি  আমের  টক, ঝাল মিষ্টি আচার।

আমের আচার তৈরিতে প্রয়োজনীয় উপকরণ

আমের আচার তৈরিতে কী কী উপকরন প্রয়োজন
  • কাঁচা আম
  • খাটি ঘানি ভাঙ্গা সরিষার তেল
  • লবন
  • হলুদ গুড়া
  • রসুন বাটা
  • আদা বাটা
  • জিরা গুড়া
  • গরম মশলা গুড়া
  • ধনিয়া গুড়া
  • সামান্য মৌরী
  • মেথি গুড়া
  • কালোজিরা
  • তেজপাতা
  • শুকনো মরিচ
  • সিরকা
  • পাচফোর

যেভাবে তৈরি করা হয় আমের আচার

প্রথমে গাছ থেকে সেরা মানের কাচা আম সংগ্রহ করা হয়। এক্ষেত্রে আশ বিহিন কাচা আমকে প্রাধান্য দেওয়া হয়। আম সংগ্রহ এর পর এই আমগুলোকে ভালো ভাবে ধুয়ে পরিষ্কার করে ফালি ফালি করে কেটে নেওয়া হয়। এরপর একটি ফ্রাইপেনে  পর্যাপ্ত খাটি সরিষার তেল দিয়ে এতে আদা বাটা, রসুন বাটা, সহ সকল মশলা গুলো দিয়ে ভালো ভাবে কষীয়ে নেওয়া হয়। মশলা কষানো শেষে এতে ফালি করে কেটে রাখা আম দেওয়া হয় এবং পর্যাপ্ত সিরকা এড করা হয়। এরপর প্রায় ৩০ মিনিট পর আমের আচারের ঘনত্ব বেড়ে গেলে এড করা হয় বিন্নি ফুডের সিক্রেট মশলার গুড়া। ব্যাস এরপর আচার গুলোকে ভালো ভাবে নেড়ে নিলেই এটি রেডি। এরপর একটি পরিষ্কার পাত্রে আচার গুলোকে ঢেকে  বিশেষ প্রক্রিয়ায় রোদে শুকানো হয় যাতে বাহিরের ধুলাবালি থেকে আচার গুলো সুরক্ষিত থাকে। পর্যাপ্ত রোদ শেষে আচার গুলো রেডি হলে এগুলোকে বয়ামে রেখে সংরক্ষন করা হয়।

বিন্নি ফুডের হোম মেইড আচারই কেন খাবেন?

এখন তো বাজারে হাতের নাগালেই বিভিন্ন  আচার পাওয়া যাচ্ছে। তাহলে এতো আচারের ভীরে আমাদের আচার টা আপনার কেন খাওয়া উচিত? চলুন জেনে নেওয়া যাক-

  • বাজারে পাওয়া অধিকাংশ আচার বানিজ্যিক উদ্দেশ্য নিয়ে তৈরি করা হয়, তাই এ সকল আচারে আপনি ঘরোয়া স্বাদ কখনোই পাবেন নাহ। অন্যদিকে বিন্নি ফুডে সম্পুর্ন নিজস্ব ঘরোয়া পদ্ধতিতে এই আমের আচার তৈরি করা হয়। এবং আমাদের এই আচারে আপনি ১০০% ঘরোয়া প্রিমিয়াম আচারের স্বাদ পাবেন।
  • বাছাইকৃত সেরা মানের আম থেকে তৈরি করা হয় এই আচার।
  • আচার তৈরিতে ব্যবহার করা সরিষার তেল, জিরা গুড়া, হলুদ গুড়া, ধনিয়া গুড়া সম্পুর্ন আমাদের নিজস্ব তত্বাবধানে তৈরি করা। তাই মশলার ক্ষেত্রেও আপনি পাবেন প্রিমিয়াম মানের নীশ্চয়তা।অণ্যদিকে বাজার থেকে কিনে আনা আচারে ব্যবহার করা হয় অতিরিক্ত মাত্রায় লবন, কমদামি মশলা এবং রাসায়নিক, যা আমাদের শরীরের জ্যণ ক্ষতিকর।
  • এই আচারে কোনো রকম কৃত্তিম রং কিংবা প্রিজারভেটিভ এমনকি ভিনেগার ও এড করা হয় নি।

আমের আচার যেভাবে দীর্ঘদিন সংরক্ষন করবেন

  • যেহেতু আমাদের আমের আচার কোনো রকম প্রিজারভেটিভ বা ভিনেগার এড করা হয় নি, তাই আচার দীর্ঘদিন সংরক্ষনের জণ্য অবশ্যই মাঝে মাঝে রোদে দিবেন । এছাড়াও খাটি সরিষার তেল গরম করে আচারে মিক্সড করে রাখতে পারেন।
  • আচার দীর্ঘদিন ভালো রাখতে এটি কাচের বয়ামে সংরক্ষন করুন।
  • ভেজা হাতে আচার স্পর্শ করবেন নাহ, আচার খাওয়ার জণ্য চামুচ ব্যবহার করুন।
  • ফ্রিজে রেখেও এটি দীর্ঘদিন খেতে পারবেন । তবে বিন্নি ফুডের মজাদার এই ট ক ঝাল মিষ্টি আচার এতোটাই মজাদার যে এটি আপনি দীর্ঘদিন সংরক্ষনের সুযোগ টাই পাবেন নাহ। হাতে পাওয়া মাত্রই হয়তো অল্প সময়েই খেয়ে শেষ করে ফেলবেন।

আমের আচার কী শুধুই মুখরোচক খাবার?

আমের আচার কী শুধুই মুখরোচক খাবার?

অনেকেই হয়তো ভেবে থাকেন আমের আচার শুধুই মুখরোচক খাবার, কিন্তু আসলে তা নয়, আমের আচার মুখরোচক  খাবার হওয়ার পাশাপাশি এটি কিন্তু আমাদের স্বাস্থ্যের জন্যও অনেক উপকারি।

  • আমের আচার আমাদের হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।
  • আমের আচার খেলে এটু মুখের রুচি বাড়াতে সাহায্য করে।
  • আচার শরিরের মেটাবলিজম বাড়াতে সাহায্য করে।
  • আচার শরীরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া কমাতে সাহায্য করে।
  • নিয়মিত আচার খেলে ইমিউনিটি সিস্টেম মজবুদ হয়, ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

আমের আচার আপনি খালি মুখে খাওয়া ছাড়াও ভাত, খিচুরি, বিরিয়ানি, পরোটা কিংবা  মুড়ির সাথে মেখেও খেতে পারবেন। তাই দেরী না করে মজাদার ঘরোয়া আচারের স্বাদ পেয়ে অর্ডার করুন বিন্নি ফুডের প্রিমিয়াম টক ঝাল মিষ্টি আমের আচার।

Leave a Reply