You are currently viewing মধু খাওয়ার নিয়ম, উপকারিতা এবং মধু দিয়ে রূপচর্চা
মধু খাওয়ার নিয়ম, উপকারিতা ও রূপচর্চা

মধু খাওয়ার নিয়ম, উপকারিতা এবং মধু দিয়ে রূপচর্চা

মধু প্রাকৃতিক ভাবে পাওয়া একটি উপকারী খাদ্য। এতে রয়েছে নানা ধরনের স্বাস্থ্য উপকারিতা এবং রোগ নিরাময় সক্ষমতা। প্রাচীন কাল থেকেই মধু আমাদের মূল ধারার খাদ্যের একটি অংশ হয়ে আসছে। আমাদের আজকের লেখায় মধু কীভাবে আমাদের উপকার করে এবং কি কি কাজে লাগে তা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। 

মধু খাওয়ার নিয়ম

মধু একটি রোগ প্রতিরোধী ও ওষুধি গুণাবলি সমৃদ্ধ খাবার যাতে রয়েছে প্রাকৃতিক পুষ্টি উপাদান। সঠিক উপায়ে মধু খেলে যেমন অনেক উপকার পাওয়া যায় তেমনি অনিয়ম করে মধু খেলে ঘটে নানান ধরনের জটিলতা। নিচে মধু খাওয়ার সঠিক নিয়ম বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হলো। 

সকালে খালি পেটে 

খালি পেটে মধু খেলে অনেক উপকার পাওয়া যায়। বিশেষ করে সকালে খালি পেটে মধুর সাথে লেবুর রস সেবন করলে পেটের জ্বালাপোড়া সহ অন্যান্য পেটের অসুখ দূর হয়। তাছাড়া সকালে ১-২ চামচ মধু কুসুম গরম পানির সাথে খেলে অনেক স্বাস্থ্য উপকার পাওয়া যায়। 

রাতে খাওয়ার পর

সচরাচর সকালে মধু খাওয়ার কথা বলা হলেও রাতে খাবার খাওয়ার ৩-৪ ঘণ্টা পর মধু খাওয়া যেতে পারে। রাতের বেলা মধু খেলে এটি শরীরের অতিরিক্ত চর্বি দূর করতে সাহায্য করে। সাথে সাথে লেবুর রসের সাথে মধু খেলে মানুষিক, অবসাদ, দুশ্চিন্তা ও ক্লান্তি দূর করে ভালো ঘুম হতে সাহায্য করে। 

শিশুদের খাওয়ার নিয়ম

বাচ্চাদের মধু খাওয়াতে হলে আমাদের বিশেষ কিছু শর্ত অনুসরণ করতে হয়। সাধারণত জন্ম থেকে ১২ মাস পর্যন্ত বাচ্চাদের স্বাস্থ্য সুগঠিত হতে থাকে। বিশেষ করে পাকস্থলী এই সময়ের মধ্যে পরিপক্ব হতে থাকে। অন্যদিকে মধুতে ইনফ্যান্ট বটুলিজম নামের একটি ব্যাকটেরিয়া থাকে যা প্রাপ্ত বয়স্কদের তেমন ক্ষতি না করলেও শিশু শরীরে খারাপ প্রভাব ফেলে। 

এই কারণে ০ থেকে ১২ মাস পর্যন্ত ভুলেও মধু খাওয়ানো উচিত হবে না। তবে ১ বছর পার হলে তখন ধীরে ধীরে অল্প পরিমাণে যেমন ১ ফোটা করে মধু খাওয়ানো যেতে পারে। তবে অবশ্যই মনে রাখতে হবে কোন ধরনের হেরফের হলেই শিশুর স্বাস্থ্য হুমকির মুখে পরবে। 

বয়স্কদের খাওয়ার নিয়ম 

বয়স বাড়ার সাথে সাথে বৃদ্ধ মানুষের নানান শারীরিক জটিলতা দেখা দেয়। এদের মধ্যে কাশি ও স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়া অন্যতম। গবেষণায় দেখা গেছে যাদের খাদ্য তালিকায় নিয়মিত মধু খাওয়ার অভ্যাস আছে তাদের স্মৃতিশক্তি অন্যদের থেকে বেশি শক্তিশালী। অর্থাৎ মধু ফুসফুসের সমস্যা দূর করার পাশাপাশি মস্তিষ্ক উর্বর ও কার্যকরী রাখে। এই কারণে যে কোনো বয়সের মানুষের নিয়মিত মধু সেবন করা উচিত। 

ওজন কমাতে মধু খাওয়ার নিয়ম

মধুতে চর্বি কমানোর অসাধারণ পুষ্টি গুন রয়েছে। প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে অথবা প্রতিদিন সকালে খালি পেটে কুসুম গরম পানির সাথে লেবুর রস এবং ১-২ চামচ মধু মিশিয়ে খেলে তা শরীরের ওজন দ্রুত কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া এটি শরীরের দূষিত পদার্থ বের করে দিয়ে শরীর সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। 

রসুন ও মধু একসাথে 

রসুন ও মধু যৌন স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। প্রতিদিন সকালে ১ চামচ মধুর সাথে এক কোয়া রসুন খেলে ইরেকটাইল ডিসফাংশন সমাধান হওয়া সহ প্রিম্যাচিউর ইজাকুলেশন নিরাময় হয়। তাছাড়া সকালে রসুন সহ মধু সেবন করলে সারাদিন শরীরে ক্লান্তি আসে না এবং দীর্ঘক্ষণ কর্মক্ষম থাকা সম্ভব হয়। 

শারীরিক দুর্বলতা দূর করতে 

মধু একটি সর্বজনীন পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ খাবার। এতে শরীরের জন্য উপকারী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, আয়রন, জিংক, রিবোফ্লাভিনের মত পুষ্টিগুণের পাশাপাশি সব ধরনের ভিটামিন রয়েছে। যা একাধারে আমাদের স্বাস্থ্য সমস্যা নিরাময়ের পাশাপাশি সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করে। 

তাছাড়া মধু অতিরিক্ত ওজন নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। মধুর সর্বোচ্চ পরিমাণ উপকারিতা নিশ্চিত করতে হলে খালি পেটে খেতে হবে। কারণ ভরা পেটের চেয়ে খালি পেটে মধু বেশি কাজ করে। অন্যদিকে শারীরিক ক্লান্তি দূর করার জন্য এবং পেটের সমস্যা নিরসনের জন্য মধুর বিকল্প কোন প্রাকৃতিক সমাধান নেই। 

কালোজিরার সাথে মধু

কালোজিরাকে সর্বরোগের মহা ওষুধ বলা হয়। কারণ মানব শরীরের জন্য উপকারী প্রায় সকল উপাদান কালোজিরার মধ্যে পাওয়া যায়। এর সাথে যখন মধু যোগ করা হয় তখন পুষ্টিগুণ দ্বিগুণ হয়ে যায়। সাধারণত, শারীরিক দুর্বলতার পাশাপাশি অনেক রোগ নিরাময় করার জন্য প্রতিদিন কালোজিরার সাথে মধু মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে। সব থেকে বড় কথা হলো মধু এবং কালোজিরা একসাথে খেলে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় না। 

মধু খাওয়ার উপকারিতা

মধু খাওয়ার নানাবিধ উপকারিতা রয়েছে যা নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। 

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই

মধুতে কোনো প্রকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। অর্থাৎ পরিমাণ মত মধু খেলে তাতে শরীরের মধ্যে কোন ধরনের সমস্যার সৃষ্টি করে না করে উপকার করে। 

যৌন স্বাস্থ্য উন্নত করে 

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে মধুর সাথে ১ টি করে রসুনের কোয়া সেবন করলে তা যৌন স্বাস্থ্য উন্নয়নে সহায়তা করে। বিশেষ করে ইরেকটাইল ডিসফাংশন ও প্রিম্যাচিউর ইজাকুলেশন সমস্যা দূর করার জন্য এই পদ্ধতি অনেক কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। তাছাড়া মধু শরীরে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে যা শরীর সমসময় উদীপ্ত রাখে।  

হৃৎপিণ্ড ও মস্তিষ্কের জন্য উপকারী 

হৃদরোগের চিকিৎসায় মধু অনেক ভালো কাজ করে। বিশেষ করে এটি হৃদপিণ্ডে থাকা ক্ষতিকর এলডিএল কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে উপকারী এলডিএল কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে, অন্যদিকে মধু হৃৎপিণ্ডের পেশীগুলোকে শক্তিশালী করে এর কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। 

ক্ষত নিরামক 

মধুতে প্রচুর পরিমাণ ব্যাকটেরিয়া বিরোধী উপাদান রয়েছে যা সংক্রামক ক্ষত নিরাময় করতে সহায়তা করে। প্রাচীন কাল থেকে মধু বিভিন্নরকম ঘা এবং ক্ষত নিরাময় করার কাজে ঔষধ হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। 

পরিশোধিত চিনির থেকে ভালো

পরিশোধিত চিনি আমাদের রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি করে রক্তে সুগার বৃদ্ধি করার পেছনে কাজ করে। অন্যদিকে মধুতে রয়েছে উপকারী শর্করা যা রক্তনালীতে চর্বি জমা প্রতিরোধের পাশাপাশি সুগার নিয়ন্ত্রণ করে। এতে পরিমাণমতো কপার, লৌহ ও ম্যাংগানিজ থাকে যা রক্তশূন্যতা দূর করে। 

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ 

মধুতে যথেষ্ট পরিমাণ উপকারী ফেনোলিক অ্যাসিড ও ফ্ল্যাভোনয়েড থাকে যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। অন্যদিকে সঠিক নিয়মে মধু সেবন করলে তা দেহের জন্য সঠিক মাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট তৈরি করে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। 

তারুণ্য বজায় রাখে

মধুতে উপকারী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকার কারণে ত্বকের রং সতেজ ও উজ্জ্বল হয় যা দীর্ঘ সময় তারুণ্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। 

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে 

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে কুসুম গরম পানির সাথে লেবুর রস ও মধু মিশিয়ে খেলে তা পেটের যাবতীয় সমস্যা দূর করে। বিশেষ করে যাদের কোষ্ঠকাঠিন্য আছে তাদের জন্য অনেক উপকারী। তাছাড়া এই পদ্ধতি ব্যবহার করলে হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়। 

ওজন কমাতে সাহায্য করে 

প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে লেবুর রসের সাথে মধু মিশিয়ে খেলে তা দেহের অতিরিক্ত চর্বি গলিয়ে ওজন নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা  করে। 

হাড় ও দাঁতের গঠন মজবুত করে 

মধুতে রয়েছে পরিমাণ মত প্রোটিন ও ক্যালসিয়াম যা হাড় ও দাঁতের গঠন সুগঠিত করে। 

মধু দিয়ে রূপচর্চা

মধুর মধ্যে রয়েছে নানাবিধ পুষ্টিগুণ যা রূপচর্চায় অনেক ভালো প্রতিক্রিয়া শুরু করেছে। নিচে মধু দ্বারা কি কি রূপচর্চা করা যায় তা বর্ণনা করা হলো। 

ব্রণ দূর করতে 

মধুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান। এগুলো ত্বকের নানাবিধ সমস্যার কারণে তৈরি হওয়া ব্রণ সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। 

প্রতিদিন যে যে জায়গায় ব্রণ উঠেছে সে সে জায়গায় মধু লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে দিয়ে তারপর গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। এভাবে কিছুদিন ব্যবহার করলে মুখ ব্রণ মুক্ত হবে। 

মুখের কালো দাগ দূর করতে

মধুতে যে অ্যান্টিইনফ্ল্যামটরি ও অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান রয়েছে তা ত্বকের কালো দাগ দূর করার পাশাপাশি কোষ পুনর্গঠন করতে সাহায্য করে। প্রতিদিন ১ চামচ নারিকেল বা জয়তুনের তেলের সাথে ১ চামছ মধু মিশিয়ে তা ত্বকে মাখলে কালো দাগ দূর হওয়ার পাশাপাশি মুখ আরও উজ্জ্বল হবে। 

রোদে পোড়া ভাব কমাতে

অ্যান্টিইনফ্ল্যামটরি উপাদান ত্বকের উপর পড়া রোদের প্রভাব নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে। 

লোমকূপে জমে থাকা ময়লা পরিষ্কার

লোমকূপে জমে থাকা ময়লা ত্বকে নানা ধরনের সমস্যার সৃষ্টি করে। বিশেষ করে ফুসকুড়ি, চুলকানি ও চর্মরোগের প্রধান কারণের মধ্যে একে দায়ী করা যায়। যাইহোক, নিয়মিত মধু খেলে এবং তা নারিকেল তেলের সাথে মিশিয়ে হালকা করে শরীরে মাখলে লোমকূপে থাকা ময়লা পরিষ্কার হয়ে যাবে। 

উপরিউক্ত আলোচনায় মধুর উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আসা করি লেখাটি পরে আপনি মধুর পুষ্টিগুণ ও রূপচর্চায় এর অবদান সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা লাভ করেছেন। 

Leave a Reply